সামাজিক ব্যবসায় কি এবং কেন গুরুত্বপূর্ণ?

সামাজিক ব্যবসায় কি?

আপনি কি কখনও এমন এক ব্যবসার কথা ভেবেছেন যা শুধু মুনাফা অর্জনই নয় বরং সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনের জন্যও কাজ করে? সামাজিক ব্যবসায় কি? এটি এমনি এক ধরনের ব্যবসা যার লক্ষ্য অর্থনৈতিক মুনাফা লাভের পাশাপাশি  সামাজিক উদ্দেশ্যও অর্জিত হয়।
সামাজিক ব্যবসায় এর ধারণাটি গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা এবং ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী অধ্যাপক মুহাম্মদ ইউনূস আমাদের সামনে তুলে ধরেন। তিনি “ইউনূস সামাজিক ব্যবসা” ও প্রতিষ্ঠা করেন, এটি এমন একটি সংস্থা যা সারা বিশ্বে সামাজিক ব্যবসায় কে সমর্থন ও বিনিয়োগ করে।

ব্যবসা কি?

মূলত মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে পণ্য-দ্রব্য, সেবাকর্ম ,তথ্যাদি উৎপাদন বন্টন ও বন্টন সহায়ক সকল পরিচালিত বৈধ অর্থনৈতিক কর্মকান্ডকে ব্যবসা বলে। ব্যবসায়ের পরিধি ক্ষুদ্র পরিসরের একক মালিকানাধীন চা কিংবা মুদি দোকান অথবা বৃহদাকারের কোম্পানি সংগঠনও হতে পারে।

সামাজিক ব্যবসায় কি এবং কেন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে?

সামাজিক ব্যবসায় কি? এটি এমন এক ধরনের ব্যবসা যার লক্ষ্য মুনাফা অর্জনের পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়নে অংশ নেওয়া। এটি অপেক্ষাকৃত নতুন ধারণা, কিন্তু এটি দ্রুত বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। এর কারণ হল সামাজিক ব্যবসাগুলো গতানুগতিক ব্যবসার তুলনায় অনেক সুবিধা প্রদান করে। উদাহরণস্বরূপ, সামাজিক ব্যবসাগুলি যেসব ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে:
       ১ দারিদ্রতা ও বৈষম্য হ্রাস
       ২. সামাজিক কল্যাণ
       ৩.পরিবেশের সুরক্ষা
       ৪. কর্মসংস্থান সৃষ্টি
সামাজিক ব্যবসাগুলো  প্রায়ই গতানুগতিক ব্যবসার তুলনায় অর্থনৈতিক মন্দা থেকে বেশি স্থিতিস্থাপক হয়। এর কারণ হল সামাজিক ব্যবসাগুলি সাধারণত সুবিধা বঞ্চিত সম্প্রদায়ের মানুষের চাহিদা পূরণের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে, যেগুলোর অর্থনৈতিক অগ্রগতি কিংবা নিম্নগতি দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার সম্ভাবনা কম।

সামাজিক ব্যবসাগুলো সাধারণত অলাভজনক সংস্থা যা সামাজিক উদ্যোক্তাদের মালিকানায় ও তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। সামাজিক উদ্যোক্তারা এমন ব্যক্তি যারা সামাজিক বা পরিবেশগত সমস্যা সমাধানের প্রাথমিক লক্ষ্য নিয়ে ব্যবসা শুরু করে। মুলত সামাজিক উন্নয়নে অংশগ্রহন করা সহ জনসম্পৃক্ত থাকার সুযোগ এর কারনেই সামাজিক ব্যবসায় এর ধারনা টি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

সামাজিক ব্যবসায় কি এবং এর ধরন

সামাজিক ব্যবসায় কি এটা জানার সাথে সাথে সামাজিক ব্যবসায় এর ধরন সমূহ ও জানা দরকার। সামাজিক ব্যবসাগুলোকে তাদের সামাজিক উদ্দেশ্যগুলির উপর নির্ভর করে বিভিন্ন শ্রেণীতে বিভক্ত করা যেতে পারে। বেশ কিছু প্রচলিত সামাজিক ব্যবসার মধ্যে রয়েছে:
ক্ষুদ্রঋণ ব্যবসা: ক্ষুদ্রঋণ ব্যবসায় নিম্ন আয়ের ব্যক্তি ও ব্যবসায়কে ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান করে। এই ঋণগুলি একটি ব্যবসা শুরু বা বৃদ্ধি করতে, শিক্ষা বা স্বাস্থ্যসেবার মতো প্রয়োজনীয় খরচ গুলো কভার করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণ: সামাজিক উদ্যোগগুলো হল এমন ব্যবসা যা সুবিধাবঞ্চিত সম্প্রদায়কে পণ্য বা পরিষেবা সরবরাহ করে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে একটি সামাজিক উদ্যোগ নিম্ন আয়ের সম্প্রদায়ের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যের আবাসন, স্বাস্থ্যসেবা বা শিক্ষা প্রদান করতে পারে।
পরিবেশবান্ধব ব্যবসা: পরিবেশবান্ধব ব্যবসা মূলত পরিবেশ বান্ধব পণ্য এবং পরিষেবা গুলোর বিকাশ এবং বাজারজাত করে।

সামাজিক ব্যবসায় এর গুরুত্ব

সামাজিক ব্যবসায় কি এবং এর গুরুত্ব কি? সামাজিক ব্যবসার বৃদ্ধি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যাপক হারে বাড়ছে।এই বৃদ্ধি মূলত বিভিন্ন ইতিবাচক বৈশিষ্ট্যের জন্য হচ্ছে , যার মধ্যে রয়েছে:
সামাজিক দায়বদ্ধতা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি: আরও বেশি সংখ্যক মানুষ সামাজিক দায়বদ্ধতার গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন হচ্ছে। এটি সামাজিক ব্যবসা থেকে পণ্য এবং পরিষেবার চাহিদা বৃদ্ধির দিকে পরিচালিত করছে।
প্রযুক্তির অগ্রগতি: প্রযুক্তির অগ্রগতি একটি সামাজিক ব্যবসা শুরু করা এবং পরিচালনা করা সহজ এবং আরও সাশ্রয়ী করে তুলেছে। উদাহরণস্বরূপ, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি একটি বৃহৎ শ্রোতাদের কাছে পৌঁছাতে এবং পণ্য ও পরিষেবাগুলি বাজারজাত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
সরকারি সহায়তা: আমাদের দেশের সরকার এখন সামাজিক ব্যবসায় সহায়তা দিচ্ছে। এই সহায়তা মধ্যে রয়েছে আর্থিক সহায়তা, ট্যাক্স মওকুফ, বা অন্যান্য প্রণোদনা।

সামাজিক ব্যবসায় এর উদাহরন

এখানে বেশ কয়েকটি সফল সামাজিক ব্যবসার  উদাহরণ দেওয়া হল। সামাজিক ব্যবসায় কি এবং কেন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে তা জানতে এসমস্ত প্রতিষ্ঠান গুলো উদাহরণ হতে পারে।

গ্রামীণ ব্যাংক– গ্রামীণ ব্যাংক হলো একটি ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী ব্যাংক যা বাংলাদেশের নিম্ন আয়ের নারীদেরকে ক্ষুদ্রঋণ প্রদান করে। গ্রামীণ ব্যাংক লক্ষ লক্ষ নারীকে ব্যবসা শুরু করতে বা বৃদ্ধি করতে এবং তাদের জীবিকা উন্নত করতে সাহায্য করেছে।

টমস সু কম্পানি– টমস সু কম্পানি তাদের বিক্রয়কৃত  প্রতি জোড়া জুতার বিপরীতে এক জোড়া জুতা দান করে। টমস জুতা বিশ্বজুড়ে অভাবী শিশুদের লক্ষ লক্ষ জোড়া জুতা দান করেছে।

অর্গানিক খাদ্যদ্রব্য বিক্রয় কেন্দ্র– এটি  জৈব এবং অর্গানিক খাবার বিক্রি করে, যা টেকসই কৃষি এবং পরিবেশ সুরক্ষার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

সামাজিক ব্যবসায় কি কারনে সমর্থনযোগ্য?

সামাজিক ব্যবসায় কি কেবলমাত্র ব্যবসায়িক মুনাফা কেন্দ্রিক? না, এটি মুনাফা-ভিত্তিক উদ্যোগের চেয়ে বেশি কিছু এবং একটি কার্যকর ব্যবসার আইডিয়া। এটি বিশ্বের অন্যতম সামাজিক সমস্যা সমূহের কিছু উদ্ভাবনী ও বাস্তবধর্মী সমাধান।  এখানে ব্যবসার ধারণা, বৈশিষ্ট্য এবং উদাহরণ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। আমাদের গতানুগতিক  ব্যবসা এবং অলাভজনক ব্যবসা সংস্থার সাথে তুলনা এবং বৈসাদৃশ্য দেখানো হয়েছে। সামাজিক ব্যবসায় অর্থনৈতিকভাবে টেকসই হওয়ার পাশাপাশি ইতিবাচক সামাজিক পরিবর্তন তৈরি করার সম্ভাবনা রয়েছে।

তাই প্রচলিত ব্যবসায়িক মডেলের একটি কার্যকর বিকল্প হিসাবে সামাজিক ব্যবসাগুলিকে সমর্থন করা এবং প্রচার করা গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন- ১০ হাজার টাকায় ২৫ টি ব্যবসার আইডিয়া

গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।