২ লাখ টাকা বিনিয়োগে ৫ টি জনপ্রিয় ব্যবসার আইডিয়া

২ লাখ টাকায় ব্যবসা

২ লাখ টাকায় ব্যবসা বলতে সেসমস্ত ব্যবসাগুলোকে বুঝানো হয়েছে যেগুলো ২ লাখ টাকা মুলধন দিয়ে শুরু করা এবং লাভবান হওয়া সম্ভব।

আপনি কি স্বাধীনভাবে একান্ত নিজের ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছেন। কিন্তু বাদ সাধছে পুঁজি? ভাবছেন দশ বিশ লাখ ছাড়া কি করে নামবেন এই মাঠে? চিন্তা দূর করুন আর জেনে রাখুন, মাত্র ২ লাখ টাকায় ব্যবসা করা সম্ভব। কি করে? বুঝে নিন এই লেখা থেকেই।

২ লাখ টাকায় ব্যবসা করুন

ঠিকমত খোঁজ রাখলে বেশ ভালো সংখ্যক ২ লাখ টাকায় ব্যবসা আছে। কিন্তু সেখান থেকে বুদ্ধি খাটিয়ে বেছে নিতে হবে আপনার জন্য সবচেয়ে সুবিধাজনক ব্যবসাটি। আজকের এই লেখায় ২ লাখ টাকায় ব্যবসার ৫ টি জনপ্রিয় আইডিয়া দেয়া হলো। লেখাটি পড়ে পছন্দ করে নিন আপনার জন্য সবচেয়ে উপযোগী ব্যবসাটি।

  • বেকারি
  • ফার্মেসি
  • কসমেটিকস পণ্যের ব্যবসা
  • স্ট্রিট ফুড কার্টের ব্যবসা
  • ক্যাটারিং এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট

বেকারি ব্যবসা

Bakery

ভালো বেকিং করার অভিজ্ঞতা থাকলেই ২ লাখ টাকায় ব্যবসা টি খুব সহজে শুরু করতে পারেন।

বেকিং ব্যবসার জন্য যা যা প্রয়োজনীয়  :

  • ওভেন, মিক্সার এবং অন্যান্য বেকিং টুলস
  • বেকিং উপাদান
  • প্যাকেজিং ম্যাটারিয়েলস
  • ডেলিভারি সার্ভিস

সকল প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সংগ্রহের পরে শুরু করুন বেকিং। বর্তমানের প্রযুক্তির স্বর্ণযুগে দোকান খোলারও কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। টুক করে ফেসবুকে একটি পেজ খুলুন। নিজের বাড়িতে বানানো বিশুদ্ধ সেসব বেকারি প্রডাক্টের প্রচারণা শুরু করুন পেজ থেকেই। প্রথম প্রথম নিজের আত্মীয় স্বজন প্রতিবেশী ও বন্ধুদের কাছেই বিক্রি শুরু করতে পারেন। তারপর ধীরে ধীরে বড় করুন  নিজস্ব বেকিং ব্যবসাটি।

আরও পড়ুন- ৩ লাখ টাকার ব্যবসা

উৎপাদনমুখী ব্যবসার আইডিয়া

ফার্মেসি ব্যবসা

Pharmacy

বলুন তো, সারা দুনিয়া তোলপাড় হয়ে গেলেও কোন ব্যবসাটি সবসময় চলমান থাকে? সঠিক উত্তর- ফার্মেসি। কিছুদিন আগেই করোনা মহামারী তে সমস্ত পৃথিবী থমকে গেছিলো,  সকল ব্যবসা বন্ধের মুখে এগিয়ে গেলেও, সদর্পে টিকে ছিলো ফার্মেসি ব্যবসা। তাই ভালো খারাপ সবসময়ের জন্য  নিরাপদ কোন ব্যবসা শুরু করতে চাইলে,  ফার্মেসি বেশ ভালো পছন্দ।

ফার্মেসি ব্যবসার জন্য যা যা প্রয়োজনীয়:

  • তিনমাসের একটি কোর্স
  • দোকান ভাড়া
  • ট্রেড লাইসেন্স এবং ড্রাগ লাইসেন্স
  • মালামাল সংগ্রহ

বর্তমান সময়ে ফার্মেসি ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আপনাকে শুরুতে একটি তিনমাসের কোর্স করে নিতে হবে। তারপরেই বেশ জনসমাগমপূর্ণ জায়গায় আপনি দোকান ভাড়া নেবেন। কারণ জনমানবহীন এলাকায় বেচাবিক্রি কম হবে, যার ফলে অধিকাংশ মালামাল এক্সপায়ার্ড হয়ে আপনাকে লসের মুখে ঠেলে দিতে পারে। দোকান ভাড়া হয়ে গেলে তারপরের অতি অবশ্যি কাজ হচ্ছে ট্রেড লাইসেন্স এবং ড্রাগ লাইসেন্স সংগ্রহ করে অনুমোদন নিয়ে নেয়া।

আপনার এলাকার পৌর অথবা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বেশ সহজেই এই লাইসেন্সগুলো জোগাড় করে নিতে পারবেন। ব্যস! এবার ওষুধ কোম্পানীদের সাথে যোগাযোগ করে দোকানে মালামাল তুলুন আর শুরু করে দিন জনপ্রিয় ২ লাখ টাকায় ব্যবসা!

সম্পর্কিত পোস্ট- দৈনিক আয়ের ব্যবসা

কসমেটিকস পণ্যের ব্যবসা

Cosmetics

বহু আগ থেকেই মানুষ সৌন্দর্যের পূজারী। সময়ের সাথে সাথে সৌন্দর্য প্রকাশের উপাদান হিসেবে কসমেটিকস এর চাহিদা কেবল বেড়েছে বই কমেনি।  কিন্তু কসমেটিকস বলতে আসলে বোঝায় কি কি?  বিভিন্ন অলংকার, চুলের সজ্জা সামগ্রী, মেকাপ আইটেম, স্কিনকেয়ার প্রডাক্ট এই সকল জিনিস বলতেই কসমেটিকস বোঝায়। শুনতে মনে হতে পারে বেশ ভালো অংকের টাকার মামলা হয়তো। একেবারেই না! সর্বসাকুল্যে ২ লাখ টাকায় ব্যবসা এটি। মাত্র ২ লাখ নিয়েই আপনি সাজিয়ে তুলতে পারেন আপনার কসমেটিক ব্যবসার পসরা।

কসমেটিকস ব্যবসার জন্য যা যা প্রয়োজনীয়:

  • উপযুক্ত স্থানে একটি দোকান ভাড়া
  • পাইকারি মূল্যে প্রয়োজনীয় মালামাল সংগ্রহ
  • প্রয়োজনীয় প্রচার

আপনার দোকানটি ভাড়া করতে চেষ্টা করবেন এমন একটি স্থানে যেখানে নারীরা চলাচল করতে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন। যেহেতু আপনার টার্গেট কাস্টমারদের অধিকাংশই হবেন নারীরা। মালামাল সংগ্রহের উপায় দুটি।  এক, ইন্ডিয়া থেকে আমদানি করে আনা অথবা বাংলাদেশেরই বিভিন্ন পাইকারি বাজার থেকে কেনা যেমন নূরজাহান মার্কেট, বেগম বাজার অথবা ঢাকার বাইরের পাইকারি বাজারগুলো। এই ২ লাখ টাকায় ব্যবসা টি থেকে খুব সহজেই মাসে আপনি তিরিশ থেকে চল্লিশ হাজার টাকা অনাসায়ে ইনকাম করতে পারবেন।

সম্পর্কিত পোস্ট- বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

ডিলারশিপ ব্যবসা

স্ট্রিট ফুড কার্টের ব্যবসা

Food Cart

বেলা বাড়ার সাথে সাথে একটুখানি হালকা খাবারে,  বিকেলের আড্ডায় অথবা সন্ধ্যায় প্রিয়তমার সাথে মান অভিমানে,  স্ট্রিট ফুড তার জনপ্রিয়তার ছাপ রেখে চলেছে প্রতিদিন। বেশ ভালো সংখ্যক মানুষ তাদের পছন্দের তালিকায় স্ট্রিট ফুড রাখে। মজার ব্যাপার হলো এই জনপ্রিয় আইডিয়াটি কাজে লাগাতে পারেন মাত্র ২ লাখ টাকায় ব্যবসা করে। মৌসুম হিসেবে যদি খাবারের আইটেমে রাখতে পারেন নিত্য নতুনত্ব,  তাহলে এই ব্যবসা আপনার জন্যই।

স্ট্রিট ফুড কার্টের ব্যবসার জন্য যা যা প্রয়োজনীয়:

  • একটি ফুড কার্ট বা ভ্যান
  • ফুড আইটেম
  • খাবার আইটেম তৈরির উপাদান ক্রয়
  • আসবাবপত্র

ভ্যান থাকার সুবিধা হচ্ছে আপনাকে বাড়তি করে কোনো দোকান ভাড়া দিতে হবে না। সারাদিন বিক্রি শেষ করে রাতে ভ্যান নিয়ে ফিরে যেতে পারবেন। ঢাকাতে আপনার এই ভ্যানটির মূল্য পড়তে পারে বিশ থেকে তিরিশ হাজার টাকার মত। আপনি প্রচলিত ফুড আইটেম দিয়েই শুরু করতে পারেন যেমন ভাজাপোড়া, নুডুলস, কফি অথবা শরবত।

মৌসুম হিসেবে পিঠাও বেশ ভালো পছন্দ। কিংবা নিজেই নতুন কোনো আইটেম বানিয়ে নিতে পারেন ঠিক যেমন আগুন পান।  এই খাবারটি ছিলো একেবারেই নতুন এবং ঢাকায় বেশ সাড়া ফেলেছে।  একইভাবে আপনিও শুরু করতে পারেন একেবারে নিজস্ব কোনো আইটেম।

আরও পড়ুন- চা পাতার ব্যবসা

ক্যাটারিং ব্যবসা এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট

Catering

২ লাখ টাকায় ব্যবসা এর মধ্যে ক্যাটারিং এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ও জনপ্রিয়, যদি ইভেন্ট সামলাতে ভালোবাসেন এবং যদি থাকে রান্নাবান্নার অভিজ্ঞতা। তবেতো সোনায় সোহাগা! এই ব্যবসা আপনার জন্যই।

ক্যাটারিং ও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসার জন্য যা যা প্রয়োজনীয়:

  • একটি মাঝারি আকৃতির ঘর
  • টেবিল চেয়ার এবং রান্নার উপাদান
  • ডেলিভারি ভ্যান
  • কর্মী

যেহেতু এই ধরণের ব্যবসা একটু বড় আকারে হয়ে থাকে, নিজের বাড়ি থেকে পরিচালনা করা ব্যপারটা বেশ কষ্টসাধ্য।  তাই শুরুতেই একটি বাণিজ্যিক রান্নাঘর ভাড়া নিয়ে নিতে পারেন।  বাকিসব মালামাল কিনে রান্নার  আইটেমগুলো আগে পরখ করে নেয়া হবে সবচেয়ে ভালো। আত্মীয় পরিবার পরিজনদের মতামত আপনাকে আরো আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে, ভুলগুলোকে শোধরাতেও সাহায্য করবে।  তারপরেই আসে বেশ গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ- মার্কেটিং। শুরু করতে পারেন স্থানীয় পত্রিকাতে বিজ্ঞপ্তি এবং ফেসবুকে একটি পেজ খোলার মাধ্যমে।

এছাড়াও বিভিন্ন ওয়েডিং সাইট রয়েছে অনলাইনে। সেখানে আপনার এডভার্টিজমেন্ট দিয়ে রাখাও হবে বেশ ভালো সিদ্ধান্ত। ব্যবসাটা একটু বড়, একা সামলাতে গিয়ে হিমশিম যেনো না খেয়ে যান,  তাই প্রয়োজনীয় সংখ্যক কর্মী নিয়োগ করে নিতে পারেন, নিজের সুবিধামতো। সব মিলিয়ে বেশ ভালোভাবেই ২ লাখ টাকায় ব্যবসা টি জমে উঠতে পারে।

আরও পড়ুন, ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা ।

১০ হাজার টাকায় ২৫ টি ব্যবসার আইডিয়া

১ লাখ টাকায় ব্যবসা

স্টক ব্যবসার আইডিয়া

মূলধন কম হতে পারে, কিন্তু সেটা যেনো কোনোভাবেই আপনার স্বাধীন ব্যবসার পথে অন্তরায় হয়ে না দাঁড়ায়, তার জন্যই আমাদের আজকের এই লেখাটি।  আশা করি, এখান থেকে আপনার জন্য সবচাইতে উপযোগী ব্যবসাটি পছন্দ করে নিন আর শুরু করুন নিজের স্বপ্নের পথে হাঁটা।

FAQ

৩ লাখ টাকার ব্যবসা কি কি?

৩ লাখ টাকায় শুরু করা যায় এমন কিছু সম্ভাবনাময় ব্যবসা হল-
১। ফার্মেসি ব্যবসা।
২। গ্রোসারি শপ।
৩। রেস্টুরেন্ট ব্যবসা।
৪। জুস বার।
৫। বই-খাতার পাইকারি ব্যবসা।
৬। ঝুট কাপড়ের ব্যবসা।

১ লাখ টাকায় ব্যবসা কি কি?

১ লাখ টাকায় শুরু করা যায় এমন কিছু সম্ভাবনাময় ব্যবসা হল-
১। কসমেটিকস এর দোকান।
২। মোবাইল ব্যাংকিং ও রিচারজ এর দোকান।
৩। স্যান্ডেল এর ব্যবসা।
৪। কম্পিউটার ও প্রিন্টিং এর দোকান।
৫। সেলুন।

লস ছাড়া ব্যবসা কি কি?

লাভ লস আছে বলেই ব্যবসা একটি হালাল উপার্জন মাধ্যম। তারপরও এমন কিছু ব্যবসা রয়েছে যেগুলোতে লস হয়না বললেই চলে।
১। স্যান্ডেল এর ব্যবসা।
২। খাবারের ব্যবসা।
৩। মোবাইল রিচারজ এবং মোবাইল ব্যাংকিং।
৪। মোবাইল সার্ভিসিং শপ।
৫। টি স্টল।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।